বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন

সফলতায় বছর পার করলো নান্দাইল ফায়ার স্টেশন

প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৭ বার পড়া হয়েছে

সারাদেশের বিভিন্ন উপজেলায় অনেক আগেই ফায়ার স্টেশনের কার্যক্রম চালু হলেও, জমি অধিগ্রহণসহ বিভিন্ন জটিলতার কারণে ময়মনসিংহের নান্দাইলে এই  ফায়ার স্টেশনের কার্যক্রম ছিল না।

পরে ২০১৭ সালের ৭ এপ্রিল এমপি আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন একান্ত প্রচেষ্টায় প্রথমবারের মতো নান্দাইল ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অফিসের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপিত হয়।

প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ শেষে ২০১৮ সালের ২ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নান্দাইল ফায়ার স্টেশনের উদ্বোধন ঘোষণা করেন। সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে ২০১৮ সালের ২৪ ডিসেম্বর স্টেশনটি কার্যক্রম শুরু করে।

এক বছরের পথ পরিক্রমায় এই স্টেশনের কর্মীরা ৭৮টি আগুন নিভানোর কাজে অংশগ্রহণ করে। তাদের হিসাব মতে এসব অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতির পরিমাণ এক কোটি ৯৬ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। উদ্ধার করা হয় পাঁচ কোটি ৬৩ লাখ ১৫ হাজার টাকা মূল্যের সম্পদ। এছাড়া ২৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় উদ্ধার কাজে অংশগ্রহণ করে। যেখানে ১৩ জন আহত হয়েছে। নিহত হয়েছে আরো ১৩ জন।

স্টেশন অফিসার আব্দুল মালেক বলেন, আমাদের এখানে মোট ২৭ জন স্টাফ রয়েছে, এর মধ্যে ২৪ জন অপারেশন স্টাফ, তিনজন সিভিল স্টাফ। নিয়মিত অভিযানের পাশাপাশি আমরা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মৌলিক প্রশিক্ষণ দিচ্ছি এবং বিভিন্ন হাট বাজারে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা গ্রহণ, সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে করণীয় শিক্ষা দিচ্ছি। তবে আমাদের এই স্টেশনটিতে একটি অ্যাম্বুলেন্স জরুরি প্রয়োজন। বিভিন্ন দুর্ঘটনায় রোগী পরিবহণে আমাদের সমস্যা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, নান্দাইলসহ বিভিন্ন ছোট বড় বাজারগুলোতে রিজার্ভ পানির ব্যবস্থা নেই। রিজার্ভ পানির ট্যাংক নির্মাণ করতে হবে। পাশাপাশি বাজারগুলোর পাশে বিভিন্ন জলাধারে আমাদের মেশিনারিজগুলো স্থাপনের জন্য ঘাট নির্মাণ করতে হবে। তাহলে আমাদের সেবা প্রদান আরো সহজতর হবে।

নান্দাইলের ইউএনও আব্দুর রহিম সুজন বলেন, ফায়ার স্টেশনের সব কার্যক্রমে আমাদের প্রশাসনিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

এমপি আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন জানান, নান্দাইল ফায়ার নির্মাণে আমাকে অনেক কাঠ খড় পুড়াতে হয়েছে। তাই এর  চাহিদা পুরণে আমি আন্তরিক।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন....

এ বিভাগের আরো সংবাদ