1. popularhostbangladesh@gmail.com : ADMiN :
  2. emranniloy53@gmail.com : NEWS ROOM :
  3. info.popularhostbd@gmail.com : PopularHostBD :
October 20, 2020, 8:25 am

যশোরে থানার পাশেই বোমা হামলা চালিয়ে ১৭ লাখ টাকা ছিনতাই

মীর রাজিবুল হাসান নাজমুল :
  • Update Time : Tuesday, September 29, 2020
  • 7 Time View
যশোরে থানার পাশেই বোমা হামলা চালিয়ে ১৭ লাখ টাকা ছিনতাই

যশোর কোতোয়ালি থানাসংলগ্ন ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেডের (ইউসিবিএল) সামনে প্রকাশ্যে ছুরি ও বোমা হামলা চালিয়ে ১৭ লাখ টাকা ছিনতাই হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। এতে টাকা বহনকারী দুইজন আহত হয়েছেন। একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় খুলনা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে। আহতরা হলেন- শহরের বকচর হুশতলা এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে ও আরএন রোড এলাকার আগমনী মোটরসের মালিক ইকবাল হোসেনের ভাই এনামুল হক (৩৫) ও একই এলাকার ইমদাদুলের ছেলে ইমন (২০)। এদের মধ্যে এনামুলের অবস্থা গুরুতর।
প্রত্যক্ষদর্শী ও আহতরা জানান, মঙ্গলবার দুপুরে আগমনী মোটরসের ১৭ লাখ টাকা ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেডে (ইউসিবিএল) জমা দেয়ার জন্য মোটরসাইকেলে চড়ে আসেন এনামুল ও ইমন। ব্যাংকের সামনে তারা মোটরসাইকেল থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গেই আগে থেকে অবস্থান নেয়া ৭-৮ জন মুখোশধারী তাদের ঘিরে ধরে। দুর্বৃত্তরা এনামুলের হাত, পেটে ও বুকে ছুরিকাঘাত করে ১৭ লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়। এরপর শক্তিশালী একটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে সিটি প্লাজার সামনের গলি দিয়ে মোটরসাইকেলে পালিয়ে যায়।বোমা বিস্ফোরণে ইউসিবিএল ব্যাংকের এটিএম বুথের কাচ ভেঙে যায়। এ সময় ইমনও আহত হন। ঘটনার পরপরই পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। আহত দুইজনকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। গুরুতর আহত এনামুলের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক আব্দুর রশিদ তাকে খুলনায় রেফার্ড করেন। ইমনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।আহত ইমনের অভিযোগ, ছিনতাইকালে পাশেই পুলিশের অবস্থান থাকলেও কেউই এগিয়ে আসেনি। বিকালে যশোরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন বলেন, সিসিটিভি ফুটেজ ও সোর্সের মাধ্যমে ছিনতাইকারীদের শনাক্ত করা হয়েছে। অভিযান অব্যাহত আছে। শিগগিরই জড়িতদের ধরতে পারব বলে আশাবাদী।
তিনি আরও বলেন, পুলিশের কোনো গাফিলতি নেই। তাৎক্ষণিকভাবেই পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। ছিনতাইকারীরা পরিকল্পিতভাবে ঘটনাটি ঘটিয়েছে। তারা প্রায়ই এভাবে টাকা ব্যাংকে জমা দেন। বিষয়টি ছিনতাইকারীদের জানা ছিল। তারা আগে থেকেই টাকা বহনকারীদের ফলো করছিল। টাকা বহনকারীরা অনেকটা অসতর্কই ছিলেন বলে মনে হয়েছে। টাকার ব্যাগ নিয়ে মোটরসাইকেলের পেছনে বসেছিলেন। ভিকটিমের দাবি টাকার পরিমাণ ১৭ লাখ, আমরা এখন সেটিই বলছি। তদন্তের পর টাকার প্রকৃত পরিমাণ জানা যাবে।

More News Of This Category